শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ০৯:১০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বারহাট্রায় উপজেলা পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা ফুটবল গোল্ডকাপ ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত জামালগঞ্জ পরিষদে বিদায় ও বরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত  আটপাড়ায় পেশাভিত্তিক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত  ঈদকে সামনে রেখে নেত্রকোনার সীমান্তে সক্রিয় হয়ে উঠেছে চোরা চালান চক্র নেত্রকোনায় জঙ্গি আস্তানা ২৯ ঘণ্টার অভিযানে পিস্তল বোমসহ ৮০ ধরনের মালামাল জব্দ  নেত্রকোনায় হাওর-বাংলার কিংবদন্তিদের প্রায়াণে স্মরণানুষ্ঠান অনুষ্ঠিত  নেত্রকোনায় জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে একটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে পুলিশ নেত্রকোনায় ভূমিসেবা সপ্তাহের উদযাপন আটপাড়ায় সপ্তাহব্যাপী ভূমি সেবা সপ্তাহের উদ্বোধন ও জন সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত লাঠি ভর করে ভোট দিলেন ৯২ বছরের হাজী: আব্দুল আজিজ মাস্টার

মোহনগঞ্জে বাল্য বিয়ে বন্ধ করল উপজেলা প্রশাসন

অনলাইন ডেস্ক :
  • আপডেট : বুধবার, ১৮ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৭৭ পঠিত

নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে বাল্য বিয়ে বন্ধ করেছে প্রশাসন। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের থেকে মুছলেকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।বুধবার ১৮ অক্টোবর সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ছাব্বির আহমেদ আকুঞ্জি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে মঙ্গলবার ১৭ অক্টোবর রাত ৯টার দিকে পৌরশহরের উত্তর দৌলতপুরে ওই বাল্য বিয়ে বন্ধ করা হয় মোহনগঞ্জ থানার ওসি মো.রফিকুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন: ইউএনও’র নির্দেশে পুলিশ গিয়ে বাল্য বিয়ে বন্ধ করেছে। এ সময় স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর ও এলাকার গণ্যমান্যদের উপস্থিতিতে উভয় পক্ষের থেকে বিয়ে না পড়ানোর মুছলেকা নেওয়া হয়।

স্থানীয় পুলিশ সূত্রে জানা গেছে: মোহনগঞ্জ পৌরশহরের উত্তর দৌলতপুরের মৃত সোহেল মিয়ার মেয়ে আশা মনির (১৪) বিয়ের কথা পাকাপাকি হয় সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার মধ্যপুর গ্রামের আলীম উদ্দিনের ছেলে আলহামের (১৭) সঙ্গে। আলহাম কাজের সূত্রে আশা মনিদের বাসায়ই ভাড়া থাকতো।

মেয়ের বাবা না থাকায় মায়ের সম্মতিতেই বিয়ে হচ্ছিল। বিয়ে উপলক্ষে মঙ্গলবার দিবাগত রাতে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান চলছিল। আর বুধবার সকালে বিয়ে হওয়ার কথা। বর গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানেই উপস্থিত ছিল। তবে বিয়েতে বাধ সাধে প্রশাসন। গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে হাজির হয় পুলিশ। উভয় পক্ষের লোকজনকে ডেকে বিয়ে না পড়ানোর মুচলেকা নেয় পুলিশ। সেইসঙ্গে বিয়ের সব আয়োজন ভণ্ডুল হয়ে যায়।

ইউএনও ছাব্বির আহমেদ আকুঞ্জি বলেন: বাল্য বিয়ের খবর পেয়ে পুলিশ ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে সেখানে পাঠাই। তারা গিয়ে বিয়ে বন্ধ করে দেয়। সেই সঙ্গে ছেলে মেয়ে প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত এ বিয়ে না পড়ানোর মুছলেকা নেওয়া হয়। তারপরও আমরা সতর্ক দৃষ্টি রাখছি গ্রামে কোথায়ও গিয়ে যাতে বিয়ে পড়াতে না পারে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এক ক্লিকে বিভাগের খবর
© All rights reserved © 2023 Daily Netrakona News